Book Reviews

Bullets of 71

"The book is an excellent personal account of the 1971 Liberation War of Bangladesh by Dr Nurun Nabi. It offers a remarkable first-hand view of the freedom struggle from the author's personal experiences as a freedom fighter. The book distinguishes itself from other works by providing a vast canvas ranging from the author's early childhood days to his participation in the freedom struggle.
The book is divided into two parts; Born in Bengal and Bullets of '71. Part I covers the experiences of young Nabi through his Dacca University days. Part II details his experiences participating in the freedom struggle and emerging victorious over the Pakistan Armed forces.
In Born in Bengal, Nabi describes his early years and the events that lead a young village lad to become a politically-aware student at Dacca University. He recounts his happy childhood indulging in boat trips and catching fish in village ponds. He anguishes over leaving his mother for boarding school and later his grief at her passing. He describes his college days, sports activities, and close relationships with teachers. He talks vividly about the wave of discontentment flowing against the domination and ill-treatment by West Pakistan.
Nabi includes a brief account of the history of the region, which takes the reader through the Independence of India and the political events in Pakistan leading to the elections of 1970. He provides bone-chilling accounts of the political conspiracy hatched by Yahya and Bhutto to deny Sheikh Mujibur Rahman his legitimate democratic right to head the government of Pakistan, the crackdown by the Pakistan Army, and the atrocities committed on the innocent people of East Bengal. The reader experiences the patriotic fervor and is roused by the emotional description of the Dacca rallies of Mujibur Rahman. Part I ends with Nabi and many of his friends being inspired to join the freedom struggle for the liberation of East Pakistan and the creation of their own country, Bangladesh.
Bullet's of 71 is the main area of focus, in which Nabi narrates his experiences as a Tangail Mukti Bahini freedom fighter under the leadership of Tiger Kader Siddiqui. He talks about the rigorous training and the detailed planning and coordination activities for conducting raids. He describes his harrowing experiences trying to evade the Pakistan Army under the cover of darkness through the forests and rivers in the region. He details the role played by Mukti Bahini in assisting the Indian Army in joint operations, including the airborne operations. All through the narration the strong spirit of Bangladesh, her fight and struggles, and her sacrifices stand out clearly.
In a chapter dedicated to the Bangladesh Genocide 1971, Nabi covers the gruesome atrocities committed by the Pakistan Army on their Muslim brothers and sisters as well as Hindu minority people of East Pakistan. His narration is heartbreaking and authentic and he quotes reliable western sources, including Senator Ted Kennedy, on the plight of the innocent Bangladeshis. He notes the humanitarian assistance given by India and the world, and the international reactions to the crisis, both positive and negative.
Part II ends with the reader experiencing the joyful events leading to the fall of Dacca, the surrender of the Pakistan army, and the jubilation on the Bangladesh victory on December 16, 1971. Here, Nabi describes his joy at meeting with his leader Sheikh Mujibur Rahman where he and his fellow fighters were lauded for their role in the freedom movement. Thereafter, Nabi returns to Dacca University to resume his studies.
The book is a must-read for the present generation of Bangladesh as it narrates the events leading to the Liberation War and Independence of their country. It is of immense value for other readers as it describes the role played by other countries in the crucial period of the Liberation of Bangladesh and covers various actions taken by the Tangail Mukti Bahini against a much stronger and well equipped Pakistan Army.
The book is a tribute to the people of Bangladesh, all the freedom fighters, and especially to Sheikh Mujibur Rahman, whose leadership inspired the Bangla population."

Lt Gen (Retd) Y M Bammi, PhD

“Thank you for your contribution to enrich the history of our independence. I think this book is a rare document of our political history. I am confident that it would educate many people about the true story of the Bangladesh Liberation war”

Honorable President of the People’s Republic of Bangladesh. 

His Excellency Mr. Md. Zillur Rahman

“The book is a must read for the present generation of Bangladesh as it narrates the events leading to the Liberation War and Independence of their country. It is of immense value for other readers as it describes the role played by other countries in the crucial period of the Liberation of Bangladesh and covers various actions taken by the Mukti Bahini against a much stronger and well equipped Pakistan Army. The book is a tribute to the people of Bangladesh, all the freedom fighters, and especially to Sheikh Mujibur Rahman, whose leadership inspired the Bengali population.”

Lt Gen (Retd) Y M Bammi, PhD, India. 

A Veteran of Bangladesh Liberation war ’71

“Bullets of ’71; A Freedom Fighter’s Story enriches our understanding of the liberation of Bangladesh, with its careful description, almost day-by-day, of what freedom fighter’s group did, placed in the context of a balanced yet committed appraisal of the events of 1971. Dr Nabi’s “bottom-up” perspective adds a very valuable piece, often ignored in studies that focus on the international dimensions of the war.”

Philip Oldenburg, author of India, Pakistan, and Democracy: Solving the Puzzle of Divergent Paths; and former faculty of Columbia University, New York, USA

“Even though it is an amazing personal saga, equally fascinating about the book are the political and historical data about a place and an era that were barely on my radar screen. Dr. Nabi in his book seemed less eager to talk about his personal trials and tribulations and more intent on relating the effects of the war on his people and the political ramifications.”

Pam Hersh, Special Writer, The Princeton Packet, NJ, USA

“It has taken decades for us to learn what our parents went through in World War II.  Dr. Nuran Nabi takes us to a more recent civilian battlefront sharing his terrifying experience while a university student in a distant land.  We should be grateful and read his first person account of Bangladesh’s first days toward independence – from raising the flag to mourning the loss of fellow students.  We all share a common bond and Dr. Nabi’s book should be required reading.”

Thomas T. Keating Esq., White Plains, New York, USA

“Ultimately, Bullets of ’71-A Freedom Fighter’s Story is a bold piece of literature written by a man who was not only a part of that generation, but was labeled as the brain of the Freedom Fighter forces, a true warrior. This is a must read for history and war buffs, or for anyone who appreciates the truth being told many years after the events have taken place.”  

Todd Rutherford, AskthePublishingGuru.com, USA

“Stating his own experiences on the political front and as an activist, he tells a compelling story about the triumphs and tragedies of this great conflict that consumed the entire country."Bullets of '71" is a thoughtful and very highly recommended read, not to be missed.”

Midwest Book Review, Oregon, WI USA

“From his vantage point in Tangail, freedom fighter Dr. Nuran Nabi experienced Bangladesh’s liberation war first hand at many levels.  Dr. Nabi meticulously, yet dispassionately documents the horrendous events as they unfolded.  As a trusted emissary of the Tangail freedom fighters, Dr. Nabi’s secret conferences with Indian generals make for an intriguing read. Written excellently, Bullets of ‘71 is the most authentic version of what really transpired in Bangladesh in those dark days of 1971. The book is so poignant and captivating that readers will find it impossible to put it down.”

Dr. Fakhruddin Ahmed, Princeton, NJ, USA

“Dr. Nabi’s book is a rare document of our political history”

The Daily Star

“I was fascinated by the memory and the style of Dr. Nabi’s writing.  Both books contain true history.  It will definitely educate many people about the true story of the Bangladesh liberation war.”  

Anwar-ul Alam, Former Bangladesh Ambassador to Spain

“During the last 40 hours or so, I finished reading both books.  That only shows how absorbed I was in going through your writings.  Your life and activities are a testament of how the spirit of genuine nationalism and fellow feeling enhance one's courage and ability to even offer their lives in times of need.” 

Professor Bilayet Hossain, Oklahoma, USA

“Bullets of ’71 is a rare document of the Bangladesh Liberation War.  As a historical thriller and real life chronicle, this book is a passionate tale of survival.”  

Belal Beg, Journalist and Columnist, New York, USA

 “Although hundreds of thousands of young people fought to sacrifice their lives, it is the few young people like Dr. Nuran Nabi who played pivotal roles in shaping the course of the war towards victory. It is fascinating to see that a young man barely in his twenties, with no recognized uniform, is negotiating with veteran Generals of the Indian Army! Young people should find the book fascinating in that how imposed situations can defy the age barrier in providing leadership. With the aging of our Freedom Fighter population, authentic firsthand accounts of the war are diminishing fast. Bullets of ’71 will serve to fill up that need.”   

Dr. Syed Ashraf Ahmed, Maryland, USA

Dr. Nabi’s ‘Bullets of ’71,’ whether via the life lessons of each and every anecdote or through the rich and vividly detailed dialogues and descriptions of people, places and events- awakens, captivates, enriches and inspires its reader, in this case me, to the core of my being. And that motivational aspect and universal appeal of Dr. Nabi’s ‘Bullets of ’71’ that pours out of every page and into the hearts and souls of its reader, is the accomplishment and success of the book and its writers.”

Lt Gen (Retd) Y M Bammi, PhD, India. 

A Veteran of Bangladesh Liberation war ’71

“From the first few pages, I was captivated by the story. Feeling much like an exciting novel, with each turning page, I was deeply saddened to realize time and time again, that the content before me were true events.”

Dr. Ivan Khan, New York, USA

“--- I have yet to recover from the indescribably poignant and anguish filled journey, for journey it was that Dr Nabi takes us, in his inimitable style. It was a journey that took us through some of the blackest pages of human history of man’s violence to man. Although a free Bangladesh was born as the fruit of this untold violence, the price extracted from her poor but indomitable people was terrible. It is a heart-warming story of a people’s undaunting spirit in fighting for their freedom in the face of relentless oppression of a mindless regime. --- And I recommend this book to everyone in this world who value freedom above all else so that they comprehend how that freedom is obtained!” 

Ramasubramanian Ranganath, PhD

Toronto, Canada

Onibarj Muktizuddho

আমরা যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতা পরবর্তী প্রজন্ম তাঁরা অনেকেই মুক্তিযুদ্ধের গল্প শুনে
শুনে বড় হয়েছি। আমার আজও মনে পড়ে, ছোট বেলায় আমার মা প্রতিরাতে ঘুমাতে যাওয়ার
সময় আমাদেরকে ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে নানা ঘটনা এবং তাঁদের দুখ-দুরদশার
কথা বলতেন। আমার বাবার উপর পাকিস্তানিদের হুলিয়া থাকার কারণে আমার মাকে জীবন
বাঁচানোর জন্য নয় মাস বয়সী আমার বড় ভাইকে কোলে নিয়ে মানুষের বাড়ি বাড়ি পালিয়ে
বেড়াতে হয়েছে। ডঃ নূরুন নবীর লেখা “অনিবার্য মুক্তিযুদ্ধ” বইটি আমাকে নিয়ে গিয়েছি আমার
ছেলে-বেলায়। বইটি পড়ার সময় আমার মায়ের মুখে শুনা মুক্তিযুদ্ধের ঘটনাবলিই যেন আমার
সামনে ভেসে উঠেছে। তবে ডঃ নবীর ঘটনার প্রেক্ষাপট ছিল ভিন্ন একটি জেলা এবং ভিন্ন
একটি ঘটনাপঞ্জি। এই যা। তাই নেলসন মেনডেলা তাঁর “লং ওয়াক টু ফ্রিডম’ বইতে ঠিকই
বলেছে, “দুনিয়ার সব মুক্তিযুদ্ধ এবং মুক্তিসংগ্রামের ইতিহাস একই। শুধু প্রেক্ষাপট ভিন্ন।“
বাঙ্গালী জাতির সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ অহংকার এবং ঘটনা আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধ। এই
মুক্তিযুদ্ধ হটাৎ করে আবির্ভূত হওয়া কোন ঘটনা নয়। বাংলাদেশর মুক্তিযুদ্ধের বীজ
রোপিত হয়েছিল ১৯৪৭ সালে ভারত-বিভক্তির মাধ্যমে পাকিস্তান নামক একটি অসাম্মঞ্জক
রাষ্ট্র ব্যব্স্থা সৃষ্টির পর থেকেই। পাকিস্তানি শাসক গুষ্টির শোষণ-বঞ্চনা, নিপীড়ন-
নির্যাতনের ফলে আমাদের মুক্তির সংগ্রাম হয়ে উঠেছিল অনিবার্য। আর এই অনিবার্যতার
ঘটনাপঞ্জি উঠে এসেছে ৭১ সালের এক অকুতোভয় মুক্তিযোদ্ধা এবং বাংলাদেশর ৬০ এবং
৭০ এর দশকের প্রায় সকল আন্দোলন সংগ্রামের এক বীর সেনানী ডঃ নূরুন নবীর লেখনীতে।
সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে সংগঠত এ যুদ্ধে বাংলাদেশের ছাত্র-
জনতা, কৃষক-শ্রমিক, পেশাজীবীসহ সকল পর্যায়ের মানুষ অংশগ্রহণ করেছিল। ডঃ নবীর
বইয়ে স্বাধীনতার আন্দোলন সংগ্রাম থেকে সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধে সেসব মানুষের
আত্মত্যাগের কথাই ফুটে উঠেছে। একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান এবং মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে আমার
আগ্রহ থাকার ফলে এ বিষয়ে অনেক বই পড়ার সুযোগ হয়েছে। কিন্ত, ডঃ নবীর এই বইটি
আমার কাছে মনে হয়েছে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম একটি দলিল যা বস্তুনিষ্ঠ এবং নির্মোহ
সত্য তুলে ধরেছে।


‘জন্মেছি এ বাংলায়’ এবং ‘আমার একাত্তর, আমার যুদ্ধ’ শিরোনামে দুইভাগে বিভক্ত এই
বইটিতে একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে বাংলাদেশের এক প্রত্যন্ত গ্রামে বেড়ে ওঠা, মেধাবী
ছাত্র জীবন থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত চলার পথে বাংলা মায়ের দুঃসময়ে বিভিন্ন
আন্দোলন সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পরা এবং সবশেষে ৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর ঢাকা বিজয়ের
মাধ্যমে বাঙ্গালীর স্বাধীনতা অর্জনের কথা বলার মধ্য দিয়ে বইটি সমাপ্ত হয়েছে। বইয়ের
প্রথম ভাগ ‘জন্মেছি এ বাংলায়’ চারটি অধ্যায়ে তিনি টাঙ্গাইলের গ্রামে বেড়ে ওঠা,
ময়মনসিংহ আনন্দ মোহন কলেজে সাহিত্য-সংস্কৃতি চর্চা এবং রাজনৈতিক আন্দোলনে
জড়িয়ে পরা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে ফজলুল হক হলে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে
জড়িয়ে পরা এবং বঙ্গবন্ধুর ডাকে স্বাধীনতার সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়ার কথা তুলে ধরেছেন।


ডঃ নবী বেড়ে উঠেছেন বাংলাদেশের রাজনীতির এক অগ্নিযুগে। যার ফলে, তিনি তাঁর ‘কি আনন্দ
পথে ঘাটে’ অধ্যায়ে টাঙ্গাইলের প্রত্যন্ত এক মোহনীয় গ্রামে তিনি কিভাবে বেড়ে উঠেছেন
এবং জড়িয়ে পড়েছেন সামাজিক সাংস্কৃতিক আন্দোলনে তার বর্ণনা করেছেন। যদিও তিনি
বিনয়ের সাথে বলেছেন, “এখানে আমি আত্মজীবনী বা ইতিহাস লেখার চেষ্টা করিনি।“ তবু তাঁর
এই বই আত্মজীবনী এবং ইতিহাসের মিশেলে হয়ে উঠেছে বাংলাদেশের জন্মকথার এক অনন্য
দলিল। ডঃ নূরুন নবীর কথায় প্রতিধ্বনিত হয়েছে বাংলাদেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের জীবনে
মুক্তিযুদ্ধ এবং অন্যায়ের বিরুদ্ধে যে আন্দোলন সংগ্রাম ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে – সে
চিত্র। ছোট-ছোট বিষয় নিয়ে এই অধ্যায়টিতে তিনি তাঁর শৈশবের যে কথা বলেছেন সেখানে
স্বাভাবিকভাবে ওঠে এসেছে পাকিস্তান আমলে আর্থ-সামাজিক এবং রাজনৈতিক জীবনের
হালচাল। যেমন, তিনি আইয়ুব খাঁনের মৌলিক গণতন্ত্রের (Basic Democracy) কথা বলতে
গিয়ে বলেছেন, “মৌলিক গণতন্ত্রে জনগণের কাছে চেয়ারম্যানের জবাবদিহিতার প্রয়োজন
রইল না। কারণ, তাঁরা জনগণের ভোটে নির্বাচিত নন। বন্যার সাহায্যার্থে আগত গম,
উন্মনয়ের জন্য অর্থ, এসব জনগণের কাছে যাবার আগে মৌলিক গণতন্ত্রীরা খেয়ে নিত।
এভাবে শুরু হল গম চুরি ও টাকা আত্মসাতের অভিশপ্ত প্রথা” (পৃষ্ঠা ৫২)।
“কলেজে কোলাহল” অধ্যায়ে আনন্দমোহন কলেজ জীবনে তাঁর রাজনীতি এবং সাংস্কৃতিক
চর্চার কথা তুলে ধরেছেন।এখানে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িয়ে পড়া এবং ১৯৬৬ সালে
বঙ্গবন্ধুর সাথে তাঁর প্রথম দেখার স্মৃতিচারণ করেছেন। ময়মনসিংহের এক সভায় সেদিন
বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, “আইয়ুব খান সাহেব, আপনার সঙ্গে আমার ব্যাক্তিগত বিরোধ নেই।
আমি পূর্ববাংলার জনগণের ন্যায্য দাবিদাওয়ার জন্য আন্দোলন করছি। ছয়দফা দাবি
বাস্তবায়নের মধ্য দিয়েই কেবল পূর্ববাংলার জনগণের ভাগ্যোন্নয়ন সম্ভব” (পৃষ্ঠা ৬৩)।
“ঢাকা অভিযান” অধ্যায়ে তুলে ধরেছেন ঢাকায় এসে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণরসায়ন বিভাগে
ভর্তি, ফজলুল হক হলে ছাত্র রাজনীতিতে নেতৃত্ব দেয়া, আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে
সম্পৃক্ত হওয়া এবং ৭০ এর অসহযোগ আন্দোলন ও নির্বাচনের জন্য কাজ করার নানান
অভিজ্ঞতার কথা। এই বইয়ের প্রথম ভাগের শেষ অধ্যায় ‘জয় বাংলার তূর্যনিনাদ।“ এখানে
তিনি পাকিস্তানি শাসক গুষ্টির নানান ষড়যন্ত্র এবং অত্যাআচার-নির্যাতন সত্ত্বেও যে
সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী বঙ্গবন্ধুর ডাকে সারা বাংলার মানুষ “জয়বাংলা” ধ্বনিতে
পাকিস্তানি হায়নাদের দুঃশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে দিয়েছিল সে বর্ণনাই করেছেন।এই
বইয়ের দ্বিতীয় ভাগে তিনি ২৫ মার্চের কালো রাত্রিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবেশ পথে
ব্যরিকেড দিতে গিয়ে পাকিস্তানি মিলিটারির বন্দুকের মুখ থেকে কিভাবে ফিরে এসে
টাঙ্গাইলের কাদেরিয়া বাহিনীতে যোগ যোগ দিয়েছিলেন তা তুলে ধরেছেন “বিদ্রোহী মার্চ”
অধ্যায়ে। ২৫ মার্চ কালো রাত্রির একজন প্রত্যক্ষদর্শী হিসাবে তিনি স্বচক্ষে অবলোকন
করেছেন পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হত্যাযজ্ঞের নির্মমতা। নিরস্র বাঙ্গালীর উপর
রাতের অন্ধকারে সর্বাধুনিক অস্রসস্র নিয়ে কাপুরুষের মত ঝাঁপিয়ে পরে সেদিন কসাই
পাকিস্তানিরা মেতে উঠেছিল গণহত্যায়। তাই তিনি লিখেছেন, “তখন অবশ্য ভয় ছিলনা, কেবল
বোধশক্তি হারিয়ে ফেলেছি। আবেগহীন মনে ক্যামেরার লেন্সের মাধ্যমে যেন দেখে যাচ্ছি এসব
লোমহর্ষক দৃশ্য” (পৃষ্ঠা, ১৩০)।


“প্রতিরোধ” অধ্যায়ে অকুতোভয় এই মুক্তিযোদ্ধার কাদেরিয়া বাহিনীতে জড়িয়ে পড়া এবং
“বাঘা সিদ্দিকির” ‘ব্রেইন’ হিসাবে খ্যাতিলাভসহ টাঙ্গাইলের মুক্তিযুদ্ধে ডঃ নবীর অসাধারণ
ভূমিকার কথা ফুটে এসেছে। বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকি ডঃ নবীকে দায়িত্ব দিয়েছিলেন ভারতের
সাথে যোগাযোগ করে কাদেরিয়া বাহিনীর জন্য অস্র সংগ্রহ করতে। তাই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে
ডঃ নবী তিনবার ভারতে গিয়েছিলেন, এবং ভারতীয় সেনাবাহিনীর ব্রিগেডিয়ার সানৎ সিং, মেঃ
জেঃ গিল ও লেঃ জেঃ অরোরার সাথে সাক্ষাৎ করে অস্র সংগ্রহ করেছেন। এই দুঃসাহসিক
কাজের মাধ্যমে তিনি


মিত্র বাহিনীর সাথে কাদেরিয়া বাহিনীর একটি দৃঢ় যোগাযোগ স্থাপন করতে পেরেছিলেন। এই
যোগাযোগ স্থাপন করতে গিয়ে তিনি প্রত্যক্ষ করেছেন কিভাবে ভারতীয় মিত্রবাহিনী
বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধাদের সসস্র প্রশিক্ষণ দিয়ে আমাদের মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদান
রেখেছেন। ডঃ নবী কাদের সিদ্দিকির এতই বিশ্বাসভাজন হয়ে উঠেছিলেন যে কাদের সিদ্দিকি
যুদ্ধে আহত হয়ে ভারতে চিকিৎসার জন্য যাওয়ার সময় তাঁর মা-বোনদের নিরাপদ স্থানে নিয়ে
গিয়ে হেফাজতের দায়িত্ব অর্পণ করে ছিলেন ডঃ নবী এবং শাহাজাদা নামক আরেক
মুক্তিযোদ্ধার উপর।


“বিপর্যয়” নামক অধ্যায়ে তিনি লিখেছেন কাদের সিদ্দিকির মা-বোনদের ঢাকায় নিয়ে যাওয়া
এবং সেখানে নিরাপদ স্থানে রাখার কাহিনী। “বিজয়ের সংকেত” অধ্যায়ে তিনি টাঙ্গাইলে
ভারতীয় মিত্রবাহিনীর ছত্রীসেনা নামার ব্যাপারে ইঙ্গিত এবং ঢাকায় চূড়ান্ত আক্রমণ করার
বিষয়টি আঁচের কথা উল্লেখ করেছেন। “চূড়ান্ত বিজয়” অধ্যায়ে কিভাবে মিত্রবাহিনী এবং
কাদেরিয়া বাহিনী ঢাকার দিকে এগিয়ে গিয়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতা তরান্তনিত করেছিল তা
উল্লেখ করেছেন। এখানে একটি বিষয় উল্লেখযোগ্য যে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে
আত্মসমর্পণে বাধ্য করার ক্ষেত্রে কাদেরিয়া বাহিনী একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন
করেছে।


ডঃ নবীর এই বইটি বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রাম এবং বিশেষভাবে বাংলাদেশে স্বাধীনতা
যুদ্ধে সর্বস্তরের জনগণের অবদানের ব্যাপারে একটি গুরুত্বপূর্ণ দলিল। তবে, বইটির বেশ
কয়েক জায়গায় মুদ্রণজনিত ত্রুটি রয়েছে। যেমন এক জায়গায় কর্নেল তাহেরকে লেখা হয়েছে
কর্নেল তাহেজ। আশা করি বইটির পরবর্তী সংস্করণে লেখক এ ব্যাপারে আরও সচেষ্ট
হবেন। মুক্তধারা প্রকাশিত ৩০৩ পৃষ্ঠার এই বইটি পড়ার সময় আমার মত আপনিও হয়ত চলে
যাবেন বাঙ্গালীর গর্বের মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশের এক বিখ্যাত জেলা টাঙ্গাইলে। ডঃ নূরুন
নবীর বর্ণনায় মনে হবে আপনি যেন স্বচক্ষে দেখছেন বাঙ্গালী বীরদের লড়াই এবং বিজয়।

স্মৃতি ময় নি প্পন

সূর্যোদয়ের দেশ জাপান একটি অনিন্দ্য সুন্দর দেশ। ইতিহাস ও ঐতিহ্য সমৃদ্ধ এই
দেশ নানা ক্ষেত্রে ঈর্ষান্বিত সাফল্য অর্জনের মাধ্যমে বিশ্বকে অবাক করে দিয়েছে।
জাপানিদের সাফল্য বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তিগত ক্ষেত্রে ঈর্ষণীয়। আমি এবং
আমার স্ত্রী উচ্চশিক্ষার্থে পাঁচ বছর অবস্থান করেছিলাম। এই সুযোগে জাপানিদের
বিশেষত্ব ঘনিষ্ঠভাবে উপলব্ধি করার সৌভাগ্য হয়েছিল আমার। জাপান ৬৮০০ টি
দ্বীপ নিয়ে গড়ে ওঠা ছোট্ট একটি দেশ। মুল ভূখণ্ড থেকে বিচ্ছিন্ন। কিন্তু তারা তাদের
ঐতিহ্য বজায় রেখে দিন দিন বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তিগত ক্ষেত্রে উন্নত দেশগুলিকে
টেক্কা দিয়ে সামনের দিকে অগ্রসর হচ্ছে।


জাপানিরা মেধাবী জাতি, কিন্তু তাদের এই সাফল্য এসেছে অক্লান্ত পরিশ্রমের
মাধ্যমে। তারা বিশ্বের ইতিহাসে পরিশ্রমী জাতি হিসেবে স্বীকৃত। জাপানিদের
ভোকাবুলারিতে ওভারটাইম শব্দটি নেই। জাপানিরা বৌদ্ধ ধর্মের মূলনীতি অহিংসা এবং
শান্তি নিজের জীবনে আত্মস্থ করে তা মেনে চলে।


জাপানের সাথে অবিভক্ত বাংলার সাহিত্য ও সংস্কৃতির যোগাযোগ স্থাপিত হয়
বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথের মাধ্যমে। জাপানীদের আমন্ত্রণে রবীন্দ্রনাথ ১৯১৬ সালে
প্রথম জাপান সফর করেন। এর পর তিনি আরও চারবার জাপানে গিয়েছিলেন। এই
ভাবেই অবিভক্ত বাংলার সাথে জাপানিদের নিবির সম্পর্ক গড়ে উঠে।


সেই সম্পর্কের ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশের সাথে জাপানীদের সম্পর্ক আরও
মজবুদ হয়। মুক্তিযুদ্ধের সময় জাপানীরা বাংলাদেশের সমর্থনে অর্থনৈতিক এবং
কূটনৈতিক সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়। বাংলাদেশের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ
মুজিবুর রহমানের অসাধারণ ও সাহসিক নেতৃত্ব দেখে জাপানীরা মুগ্ধ হয়েছিল। তাঁরা
বঙ্গবন্ধুকে মহানায়ক হিসাবে শ্রদ্ধা করত। তাঁকে হত্যা করায় জাপানীদের
বাংলাদেশিদের প্রতি বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছিল।


দ্বিতীয় মহাযুদ্ধে জাপানীরা পরাজয় বরন করে, এবং  আমেরিকা জাপানের
হিরোশিমা এবং নাগাসাকিতে আণবিক বোমা নিক্ষেপ করে মানুষের ইতিহাসের নজির
বিহীন প্রাণহানি ঘটায়।। আমাদের সুযোগ  হয়েছিল জাপানিরা কিভাবে এই  অপমানজনক
পরস্থিতি থেকে উত্তরিত হয়ে বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তিতে এগিয়ে গিয়েছে, এমনকি কিছু
কিছু বিষয়ে আমেরিকাকে পিছনে ফেলেছে।

আমি স্মৃতিময় নিপ্পন গ্রন্থে জাপানিদের জীবন এবং সমাজের বিভিন্ন অজানা
বিষয়ে আমার উপলব্ধি লিপিবদ্ধ করেছি।  


বই দু' টি  প্রকাশক করেছে অনন্যা। ২০২১ বইমেলাতে অনন্যা স্টলে বই দু’ টি পাওয়া
যাবে। বর্তমানে সাপ্তাহিক বাঙ্গালীতে ধারাবাহিক প্রকাশিত হচ্ছে।

screencapture-smallpdf-pdf-reader-2022-03-18-19_15_29.png
screencapture-smallpdf-pdf-reader-2022-03-18-19_15_09.png
Inkedscreencapture-smallpdf-pdf-reader-2022-03-18-19_49_31_LI.jpg

বই পরি চি তি
জাপানি দে র চ োখে বাঙ্গালী বীর

উপনি বে শি ক শক্তি কখন ো স্বপ্রন োদি ত হয়ে দখলদারি ত্ব ছাড়ে নি । আন্দ োলনে র মুখে ই
দখলদারি ত্ব ছাড়তে বাধ্য হয়ে ছে । দখলকৃত ভারতে র বে লায়ও এর ব্যত্যয় হয়নি । প্রথমে
ভারতীয় একটি গ োষ্ঠী মৃদুভাষায় নি ম্ন কণ্ঠে উপনি বে শি ক শক্তি ব্রি টিশরাজে র কাছে
ভারতীদে র জন্য কি ছু সুয োগ সুবি ধার জন্য আবে দন করে । স্বাভাবি ক কারণে ই সে আবে দনকে
অবজ্ঞা করা হয়। তাঁর পর আর একটি গ োষ্ঠী একটু উচ্চ স্বরে শান্তি পূর্ণ অসহয োগ আন্দ োলনে র
মাধ্যমে ব্রি টিশরাজকে ভারত ছাড়তে অনুর োধ করে । যথারীতি সে আবে দনও উপে ক্ষি ত হয়।
এমতবস্থায় ভারতে র একদল বি প্লবী সশস্র আন্দ োলনে র মাধ্যমে ব্রি টিশদে র তাড়ি য়ে
ভারতে র স্বাধীনতা অর্জনে র একমাত্র পন্থা হি সে বে মনে করে । এই বি প্লবীদে র মধ্যে বাঙ্গালি
বি প্লবীরা ছি ল সংখ্যাগরি ষ্ঠ। বাংলা হয়ে উঠে ব্রি টিশ বি র োধী সশস্র আন্দ োলনে র কে ন্দ্র বি ন্দু। এই
সব বাঙ্গালি বি প্লবী বীরদে র মধ্যে অন্যতম ছি লে ন রাশবি হারী ব োস। রাশবি হারীর দি ল্লী ব োমা
হামলা এবং লাহ োরে ষড়যন্ত্র পরি কল্পনার জন্য ভারতে ব্রি টিশরাজে র ভি ত কে ঁপে যায়। গ্রে প্তার
এড়াতে রাসবি হারী ব োস জাপানে নি র্বাসনে যান, এবং জাপানীদে র সহায়তায় ইন্ডি য়ান
ইন্ডি পে ন্ডে ন্স লীগ ও ইন্ডি য়ান ন্যাশনাল আর্মি গড়ে ত োলে ন। পরবর্তী তে বাঙ্গালি বি প্লবী বীর
নে তাজী সুভাষচন্দ্র ব োস জাপানে গি য়ে ইন্ডি য়ান ইন্ডি পে ন্ডে ন্স লীগ ও ইন্ডি য়ান ন্যাশনাল আর্মি র
নে তৃত্ব গ্রহণ করে ন, এবং স্বাধীন ভারত সরকার গঠন করে ব্রি টিশ এবং আমে রি কার বি রুদ্ধে
যুদ্ধ শুরু করে ন। এই ভাবে জাপানীদে র সাথে ব্রি টিশ বি র োধী ভারতে র বাঙ্গালি বি প্লবীদে র
সাথে সক্রি য় য োগায োগ স্থাপি ত হয়।


জাপানে র সাথে অবি ভক্ত বাংলার সাহি ত্য ও সংস্কৃতি র য োগায োগ স্থাপি ত হয় বি শ্বকবি
রবীন্দ্রনাথে র মাধ্যমে । জাপানীদে র আমন্ত্রণে রবীন্দ্রনাথ ১৯১৬ সালে প্রথম জাপান সফর
করে ন। এর পর তি নি আরও চারবার জাপানে গি য়ে ছি লে ন। এই ভাবে ই অবি ভক্ত বাংলার সাথে
জাপানি দে র নি বি র সম্পর্ক গড়ে উঠে । সে ই সম্পর্কে র ধারাবাহি কতায় বাংলাদে শে র সাথে
জাপানীদে র সম্পর্ক আরও মজবুদ হয়। মুক্তি যুদ্ধে র সময় জাপানীরা বাংলাদে শে র সমর্থনে
অর্থনৈ তি ক এবং কূটনৈ তি ক সাহায্যে র হাত বাড়ি য়ে দে য়।


বাংলাদে শে র জাতি র পি তা বঙ্গবন্ধুর অসাধারণ ও সাহসি ক নে তৃত্ব দে খে জাপানীরা
মুগ্ধ হয়ে ছি ল। তাঁরা বঙ্গবন্ধুকে মহানায়ক হি সাবে শ্রদ্ধা করত। তাঁকে হত্যা করায় জাপানীদে র
বাঙ্গালদে শি দে র প্রতি বি রূপ প্রতি ক্রি য়া হয়ে ছি ল।


জাপানে অবস্থানকালে আমি পাঁচ বাঙ্গালী বীরে র প্রতি জাপানি দে র অফুরন্ত শ্রদ্ধা এবং
ভালবাসা দে খতে পে য়ে ছি লাম। তাঁরা হলে ন বাংলাদে শে র জাতি র জনক বঙ্গবন্ধু শে খ মুজি বুর
রহমান, বি প্লবী নে তাজী সুভাষচন্দ্র ব োস, কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, বি প্লবী রাশবি হারী ব োস এবং
বি চারপতি রাধাবি ন োদ পাল। এই পাঁচ তারকা বাঙ্গালীদে রকে জাপানি রা অতি মানব হি সাবে শ্রদ্ধা
করে । তাঁদে র প্রতি কে ন জাপানি দে র এই সস্রদ্ধ মন োভাব সে ই আখ্যান জাপানি দে র চ োখে
বাঙ্গালী বীর গ্রন্থে লি পি বদ্ধ করা হয়ে ছে ।